লালমোহনে আগুনে পুড়লো দুটি ঘর, আহত ২


|| সারাবেলা প্রতিনিধি, লালমোহন ||

ভোলার লালমোহন পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে দুটি বসতঘর পুরোপুরি ভস্মীভূত হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আরও ১টি বসতঘর।

মঙ্গলবার ১৩ জুলাই  দিবাগত রাত আনুমানিক সাড়ে ৩ টার দিকে পৌর ৪নং ওয়ার্ড নয়ানীগ্রাম এলাকায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

এ ঘটনায় আহতরা হলেন, ওই এলাকার মৃত আঃ রশিদ হাওলাদারের ছেলে কিরণ ও কিরণের স্ত্রী রোজিনা বেগম।

লালমোহন ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মিজানুর রহমান হাওলাদার জানান, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় রাত ৪টা ২৫ মিনিটে ফোন পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছাই এবং রাত ৫টা ৩৫মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হই।

বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের আগুনের সূত্রপাতের ধারণা করে স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি আরও বলেন, অগ্নিকাণ্ডে প্রায় ৮/৯ লক্ষ টাকার ক্ষতি হতে পারে।
ঘর মালিক রবিন জানান, ওই বাড়িতে তার বড় ভাই রোকন, কিরণ ও রবিনের তিনটি ঘর পাশাপাশি ছিল। ওইদিন রাতে পরিবারের সকল সদস্যরাসহ ঘুমে ছিলেন। হঠাৎই ঘুম ভেঙে গেলে ঘরের চারদিকে  আগুন জ্বলতে দেখে তারাহুরো করে দুটি সন্তানকে কোলে নিয়ে বের হন তিনি। অগ্নিকাণ্ডে রবিন ও কিরণের দুটি ঘর পুরোপুরি ভস্মীভূত হয়ে যায়। আর আগুনের তাপে ক্ষতিগ্রস্ত হয় রোকনের ঘরটিও। অগ্নিকাণ্ডে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানান ভূক্তভোগী রবিন ও কিরণ।

আরও পড়ুনঃ  স্বপ্ন'র আলোয় উদ্ভাসিত কুমিল্লার বানঘর গ্রাম

এদিকে অগ্নিকাণ্ডের সংবাদ পেয়ে বুধবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন লালমোহন থানা অফিসার ইনচার্জ ওসি মাকসুদুর রহমান মুরাদ।
পরে আহত কিরণ ও তার স্ত্রী রোজিনা বেগমকে দেখতে স্থানীয় গ্রীণ লাইফ হসপিটালে যান তিনি।

ওসি মাকসুদুর রহমান মুরাদ বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সংবাদ সারাবেলা