রায়পুরে সড়ক সংস্কারের অনিয়মে ঠিকাদার বললেন গ্রামবাসী কী বুঝে?

|| সারাবেলা প্রতিনিধি, লক্ষীপুর ||

জেলার রায়পুর পৌরসভায় প্রায় এক কিলোমিটারের সড়ক সংস্কার কাজে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। কার্যাদেশ মতো কাজ করার কথা থাকলেও নামমাত্র বিটুমিন দিয়ে কাজ সারা হচ্ছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। এলাকাবাসী জানায়, ৫৪ লাখ টাকা ব্যয়ে পৌরসভার মধুপুর এলাকার আলতাফ ভুঁইয়ার ব্রিজ থেকে আলীরাজা পাটোয়ারী বাড়ী পর্যন্ত এক কিলোমিটার ও নতুনবাজারের মাছ বাজার ১০০ মিটার সড়ক সংস্কারের জন্য গত বছর এ কাজটি পান সাবেক কাউন্সিলর নাসির উদ্দিন সগির ও আহসান মাল।

পরে তারা দুজনে সেটি বিক্রি করে দেন উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ঠিকাদার শফিক খানের কাছে। শফিক খান গত তিনদিন আগে কাজ শুরু করেন। শুরু থেকেই কাজে অনিময় দেখতে পায় এলাকাবাসী। দু-একটি স্থানে প্রতিবাদও করেন স্থানীয় লোকজন।

স্থানীয় অন্য ঠিকাদারেরা জানান, এই এক কিলোমিটার রাস্তা উল্টিয়ে কার্পেটিং দিয়ে প্রাক্কলন অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে। তাতেও ব্যবহার করা হচ্ছে নিম্নমানের সামগ্রী। কাজ শেষ হতে না-হতেই এসব সিলকোট উঠে যাবে। বিভিন্ন স্থানে গর্তের সৃষ্টি হবে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের তদারকি নেই বলেও অভিযোগ রয়েছে।

রায়পুর পৌরসভার মধুপুর এলাকার বাসিন্দা নুর মোহাম্মদ ও নুর নবি বলেন, তাঁদের সামনেই নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করা হচ্ছে। কিন্তু পৌরসভার কর্মকর্তারা অজানা কারণে মুখ বন্ধ করে আছেন। বাধা দিলে উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকি দেয় ঠিকাদার।

আরও পড়ুনঃ  জীবিকার তাগিদে লকডাউন ভেঙ্গে পড়ছে শ্রীমঙ্গলে

মধুপুরে ওয়ার্ডের আওয়ারী লীগ নেতা নিজাম চৌধুরী বলেন, পৌরসভার কিছু কর্মকর্তা এ অনিয়মের সঙ্গে জড়িত। সে কারণে কাজে অনিয়ম করতে পারছেন ঠিকাদার। এসব অভিযোগ সম্পর্কে কাজের সহ-ঠিকাদার (সাব-কন্ট্রাক্টর) শফিক খান মুঠোফোনে ফোনে বলেন, গত বছর (২০২০ সাল) রাস্তাটি পৌরসভার সাবেক দুই কাউন্সিলরের কাছ থেকে কিনে নিয়েছি। রাস্তা উল্টিয়ে আরসিসি কার্পেটিং করা হবে। কোন নিম্নমানের কংকর দেয়া হয় না।

উল্টো তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, গ্রামবাসী কি বুঝে ? পৌরসভার ইঞ্জিনিয়ারের সাথে কথা বলেন। পৌরসভার ইঞ্জিনিয়ার মো. জুলফিকার বলেন, প্রায় এক কিলোমিটার ও পাশে ৮ ফিট ৩ ইঞ্চির কাজে কোনো ত্রুটি নেই। কাজের সময় আমাদের লোকজন উপস্থিত থাকেন। তারপরও দেখবো।

পৌরসভার মেয়র ইসমাইল খোকন বলেন, আমি তো জানি কাজ সঠিক হচ্ছে। সঠিকভাবে কাজ করার জন্য ঠিকাদারকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।  তবে কাজের গুণগত মান খারাপ এটাও বলা যায় না। তারপরও তিনি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখবেন বলে জানান।

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সংবাদ সারাবেলা