শিক্ষার্থী ধর্ষণে বিক্ষুব্ধ গোপালগঞ্জের মানুষ

|| সারাবেলা প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ ||

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় ৯ম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে গোপালগঞ্জের মানুষ। প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে তারা। সোমবার সকাল ১০টায় টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্সের সামনের সড়কে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও বিক্ষোভে অংশ নেয় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়সহ জেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এলাকাবাসীও স্বতস্ফুর্ত অংশ নেন এই কর্মসূচিতে। ধর্ষণে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানায় তারা।  

মেয়েকে ধর্ষণের প্রতিকার চেয়ে গত ২০শে ফেব্রুয়ারি টুঙ্গিপাড়া থানায় মামলা করেছেন শিক্ষার্থীর বাবা। মামলাসূত্রে জানা গেছে, গত ১৪ই ফেব্রুয়ারি বিকেলে স্থানীয় সঞ্চারণ কোচিং সেন্টার থেকে বাড়ি ফিরছিল ঐ শিক্ষার্থী। গিমাডাঙ্গা হাটখোলার কাছে পৌঁছলে বখাটে হিসেবে পরিচিত মিতুল মল্লিক, রসুল খান ও রাজীব শেখ শিক্ষার্থীকে জোর করে ইজিবাইকে তুলে নেয়। এরপর বিভিন্ন স্থান ঘুরিয়ে সন্ধ্যার দিকে তাকে বঙ্গবন্ধু সমাধিস্থলের ২ নম্বর গেটের কাছে ঝোঁপের মধ্যে নিয়ে চেতনানাশক স্প্রে ও মাথায় আঘাত করে শিক্ষার্থীকে অজ্ঞান করে ফেলে। এরপর অচেতন শিক্ষার্থীকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে মিতুল রসুল ও রাজীব।

রাত ৮টার দিকে বখাটেরা ওই শিক্ষার্থীকে তার বাড়ির সামনে অচেতন অবস্থায় ফেলে রেখে যায়। রাতেই তাকে প্রথমে টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে গোপালগঞ্জ আড়াই’শ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে পরদিন ১৫ই ফেব্রুয়ারি বিকেলে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

আরও পড়ুনঃ  খাদ্যসহায়তার দাবিতে বিক্ষুব্ধ জামালপুরের কর্মহীন মানুষ

অভিযুক্ত মিতুল মল্লিক টুঙ্গিপাড়ার শ্রীরামকান্দি গ্রামের আনোয়ার মল্লিকের ছেলে, রাজীব শেখ একই গ্রামের শুকুর আলী শেখের ছেলে এবং রসুল খান গওহরডাঙ্গা গ্রামের আকবর আলী খানের ছেলে।

টুঙ্গিপাড়া থানার ওসি এএফএম নাসিম জানিয়েছেন, অসুস্থ ওই শিক্ষার্থীর চিকিৎসার জন্য তার পরিবার ব্যস্ত থাকায় থানায় দেরিতে অভিযোগ করেছে। ইতিমধ্যে ভূক্তভোগীর ডাক্তারী পরীক্ষা হয়েছে; কিন্তু রিপোর্ট এখনও পাওয়া যায়নি। আসামীরা পালিয়ে রয়েছে। তাদের ধরতে পুলিশ জোর চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছে। শিগগিরই তাদেরকে আটক করে আইনের আওতায় আনা হবে বলেও জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সংবাদ সারাবেলা